অষ্টম জাতীয় নাট্যোৎসব গোবরডাঙায়

বিজয় মুখোপাধ্যায়, গোবরডাঙ্গা ##

বর্ষশেষে নাট্যোৎসবে মাতল নাটকের শহর। সম্প্রতি ‘গোবরডাঙা নকসা’র ব্যবস্থাপনায় গোবরডাঙা সংস্কৃতি কেন্দ্রে  অষ্টম জাতীয় নাট্যোৎসব, রঙ্গ যাত্রা অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। এই কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে থিয়েটারের মত একটা লাইভ ইভেন্ট সুষ্ঠভাবে পরিচালনা করা ও তার যাবতীয় ব্যবস্থাপনা করা কার্যত ছিল উদ্যোক্তাদের কাছে এক বড় চ্যালেঞ্জ। ২৩.১২.২০২০ থেকে ২৭.১২.২০২০ পর্যন্ত, পাঁচদিন ধরে চলে এই নাট্যোৎসব।

 এমনিতেই নাটকের শহর হিসাবে গোবরডাঙার খ্যাতি সর্বত্র।  তবুও নাট্যপ্রেমী মানুষের কাছে স্বাস্থ্যবিধির আশ্বাস পৌছে দিয়ে তাদেরকে হলমুখী করাটা ছিল যথেষ্ট কঠিন একটা কাজ। নকসার কর্নধার আশিস দাস বলেন ‘যে এই অতিমারী পরিস্থিতিতে আর্থিক সীমাব্ধতার মধ্যে ৮দিনের অনষ্ঠান সূচী’কে ৫দিনে শেষ করতে হয়েছে। যদিও সবকিছু অত্যন্ত সুচারুরূপে সম্পন্ন হয়েছে’।

উৎসবের সূচনা করেন ভারত সরকারের পূর্বাঞ্চলীয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ডিরেক্টর গৌরী বসু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্টজনেরা। নাট্যোৎসবে বাংলার পাশাপাশি অসম, হরিয়ানা, মহারাষ্ট্র সহ ভারতবর্ষের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা ১৫টি দল নাটক পরিবেশন করে। নাটকের পাশাপাশি ‘উঠোন’ এ প্রতিদিন “স্পেস ফ্যাক্টর অফ কনটেম্পোরারি থিয়েটার’ বিষয়ে আলোচনা সভা ছিল। সেখানে প্রসেনিয়াম থিয়েটারের এর ছক বাঁধা স্পেস থেকে শুরু করে পথ-ঘাট-হাট-বাজার এরবিভিন্ন স্পেস- এর প্রসঙ্গ এসেছে। সেখানে একাধারে যেমন ফিজিক্যাল স্পেস এর কথা আলোচিত হয়েছে, পাশাপাশি মেন্টাল স্পেসও যে নাটক-থিয়েটারের ক্ষেত্রে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সে কথাও উল্লেখিত হয়েছে।

 সব মিলিয়ে বছর শেষটা গোবরডাঙার নাট্যপ্রেমী মানুষদের কাছে ছিল অত্যন্ত আনন্দের। ঘরের কাছে ভাল ভাল নাটক দেখতে পেয়ে খুশি সকলেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *