অসহ্য গরমে কী করণীয়

ক্রমশ বাড়ছে গরম। তীব্র তাপপ্রবাহে আমরা ইতিমধ্যেই বেশ কষ্ট পেয়েছি। বিজ্ঞানী এবং পরিবেশবিদদের দাবী এই গরম বা তাপপ্রবাহ আরও বাড়বে। আমাদের দেশে কোথাও কোথাও ইতিমধ্যে তাপমাত্রা ৪৪ ডিগ্রিকেও ছাড়িয়ে গেছে। তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে।

আবহাওয়া দফতরের হিসাব অনুযায়ী, কোনও এলাকায় যদি তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে তাহলে তাকে বলে তীব্র তাপপ্রবাহ।

প্রচণ্ড এই গরমের সময় মানুষের বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কেননা, সার্বিকভাবে তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রির ওপরে উঠলে শরীর নিজেকে ঠাণ্ডা করার যে প্রক্রিয়া সেটি বন্ধ করে দেয়। যে কারণে এর বেশি তাপমাত্রা হলে তা যে কোন স্বাস্থ্যবান লোকের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। তাই তীব্র এই গরমে কিছু বিষয়ে সতর্কতা জরুরি।

এই গরমে বিপদ এড়াতে কী করবেন, কী করবেন না

যেহেতু তাপমাত্রা ইতিমধ্যে ৪২ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেছে, সুতরাং তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে এমন চিন্তা মাথায় রেখে আগে থেকেই নিজেকে প্রস্তুত রাখুন। 

১. প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন এবং সব সময় ঘরের তাপমাত্রায় থাকা জল ধীরে ধীরে পান করুন। ঠাণ্ডা ও বরফজাতীয় জল পান করা থেকে বিরত থাকুন। কেননা, তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে খুব বেশি ঠাণ্ডা জল পান করলে মানবদেহের ছোট রক্তনালীগুলো ফেটে যেতে পারে।

২. বাইরে যখন তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রিতে পৌঁছে যায়, তখন আপনি বাইরে থেকে ঘরে ফিরে কখনওই ঠাণ্ডা জল পান করবেন না। সব সময় ধীরে ধীরে উষ্ণ জল পান করুন।

৩. যদি বাইরে থাকার সময় হাত-পা রোদের সংস্পর্শে থাকে, তাহলে বাসায় ফিরেই তড়িঘড়ি হাত-পা ধোবেন না। এক্ষেত্রে স্নান বা হাত-পা ধোয়ার আগে কমপক্ষে আধ ঘণ্টা অপেক্ষা করুন।

৪. তীব্র গরমের এই সময়ে যতটা সম্ভব বাইরে বের না হওয়াই ভাল। বিশেষ করে বেলা ১১টার পর থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত রোদের তীব্রতা অনেক বেশি থাকে। এই সময়ে ঘরে থাকাই ভাল।

৫. জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হতে হলে ছাতা, টুপি সঙ্গে রাখুন। পা ঢাকা জুতো ও হাল্কা, ঢিলেঢালা সুতির পোশাক পরুন। স্কিন টাইট বা সিন্থেটিক কিছু পরবেন না।

৬. তৃষ্ণার্ত বোধ না করলেও নির্দিষ্ট সময় অন্তর জল পান করুন। সব সময় জল সঙ্গে রাখুন।

৭. শরীরে অস্বস্তি হলে ওআরএস  স্যালাইনে পান করতে পারেন। বাড়িতে শরবত, ফলের রস বানিয়েও পান করতে পারেন। এভাবে শরীরকে সবসময় হাইড্রেটেড রাখতে হবে।

৮. বাইরে বের হলে বেশিক্ষণ রোদে থাকবেন না। যাদের পেশার জন্য রাস্তায় রোদে থাকতেই হবে, তারা কিছু সময় অন্তর ছায়া বা ঠাণ্ডায় থাকার চেষ্টা করুন।

৯. যারা বেশি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে থাকেন, যাদের কনকনে ঠাণ্ডা জল পানের প্রবণতা থাকে এবং গরম থেকে বেরিয়েই দীর্ঘ সময় এসি ঘরে কাটান তাদের অসুখ চট করে ধরে নেওয়ার সম্ভাবনা বেশি। প্রচণ্ড গরম থেকে এসে এসি ঘরে ঢোকার আগে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। আবার এসি থেকে বেরিয়েও কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে। শরীরকে স্বাভাবিক তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার সময় দিতে হবে।

১০. হিট স্ট্রোক ও হিট ক্র্যাম্প এড়াতে শরীর ঠাণ্ডা রাখতে হবে। কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে তাকে ছায়ায় বা অপেক্ষাকৃত ঠাণ্ডা জায়গায় নিয়ে যান। চোখেমুখে জলের ঝাপটা দিন। পারলে ঠাণ্ডা জলে গা স্পঞ্জ করিয়ে দিন।

১১. খুব মশলাদার এবং পুরনো বা বাসি খাবার এড়িয়ে চলুন।

১২. প্রতিদিন অবশ্যই দুই থেকে তিন বার স্নান করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 − eight =