ওজন কমান নৈশাহারেই

অতিরিক্ত ওজন নিয়ে কম-বেশি সবাই দুশ্চিন্তায় থাকেন। অনেকেই আছেন যারা ব্যায়াম করে ওজন ঝরাতে চান। কেউ বা ওজন কমাতে অনেকটা সময় না খেয়েই কাটিয়ে দেন। তাদের মধ্যে কেউ আবার রাতের খাবার একেবারেই এড়িয়ে চলেন। কিন্তু আপনি জানেন কি, ওজন কমানোর জন্য রাতের বেলা খাবারের গুরুত্ব কতটা বেশি? এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞরা বলেন, ওজন কমাতে রাতের বেলা খাওয়া বাদ দিয়ে ডায়েট করা মোটেই বুদ্ধিমানের কাজ নয়। এতে বরং লাভের থেকে ক্ষতির পরিমাণই বেশি। এর ফলে ওজন তো কমবেই না, বরং স্বাস্থ্যহানি ঘটবে।

এ ক্ষেত্রে ওজন কমাতে রাতে সহায়ক তিনটি কার্যকর ডায়েট প্লানের কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। রাতে খেয়েও দ্রুত ওজন কমানোর সেই ডায়েট প্লান নিম্নরূপ:

ডায়েট প্ল্যান-১ : যারা ভাত জাতীয় খাবার পছন্দ করেন

অনেকেই আছেন যারা ভাবেন ভাত খেয়ে ওজন কমানো যায় না। এ কথাটি সম্পূর্ণ ভুল। আপনি চাইলে রাতে পরিমিত পরিমাণ ভাত খেয়েও ওজন কমাতে পারেন। তাহলে রাতে নিয়ম করে নিচের চার্টটি অনুসরণ করুন-

১ কাপ ভাত : ভাতের পরিমাণ ১ কাপই হতে হবে। কোনোভাবেই এর চেয়ে বেশি নয়।

১ টুকরো মাছ/ মাংস : মাঝারি আকৃতির এক টুকরো মাছ/মাংস শরীরের আমিষের চাহিদা পূরণ করবে।

১ কাপ সবজি : কম তেলে বা তেলবিহীন সবজিভাজি ফ্যাট অনেকাংশে কমায়। ১ কাপ পরিমাণ সবজি অবশ্যই ডায়েট চার্ট-এ রাখবেন। সবচেয়ে ভালো হয় কাঁচা সবজির সালাদ রাখলে।

১ কাপ ডাল : ডাল ফ্যাট কাটতে সহায়তা করে। পাশাপাশি শরীরে পুষ্টি জোগায়।

দই : ১ কাপ টক দই। এটা খাবার হজমে সাহায্য করবে।

ডায়েট প্ল্যান-২: যারা রুটি জাতীয় খাবার পছন্দ করেন

অনেকে রাতে ভাতের পরিবর্তে রুটি জাতীয় খাবার খেতে পছন্দ করেন। তাদের জন্য এই ডায়েট চার্ট। অনুসরণ করে দেখুন, ওজন কমবে দ্রুত।

দুটি পাতলা আটার রুটি : রুটিটি অবশ্যই আটার হতে হবে। লাল আটা হলে ভালো হয়। ময়দা ও পাউরুটি হলে চলবে না। কারণ ময়দার রুটি ও পাউরুটি খেলে ওজন বাড়ে।

১/২ কাপ সবজি : কম তেলে বা তেলবিহীন সবজিভাজি আটার রুটির সঙ্গে খেতে পারেন।

১/২ টি ডিমের সাদা অংশ : ডিম প্রোটিনের খুব ভালো একটি উৎস। ডিমের সাদা অংশে ক্যালোরি অনেক কম থাকে। তাই ১/২ টি ডিমের সাদা অংশ খেতে পারেন কিংবা এক টুকরো মাছ বা মাংস, যা আপনার পছন্দ।

১/২ টি ফল: নাসপাতি, আপেল কিংবা পেপে এই তিনটি ফলের যেকোনো একটি খাবেন। দই খেতে চাইলে ২/৩ টেবিল চামচ খেতে পারেন।

ডায়েট প্ল্যান-৩: দ্রুত ওজন কমানোর জন্য

খুব দ্রুত ওজন কমাতে চাইলে নিচের ডায়েট প্ল্যানটি যে কেউ অনুসরণ করতে পারেন। কারণ দ্রুত ওজন কমাতে এটি খুবই কার্যকরী।

আধা কাপ হাই ফাইবার কর্ণফ্লেক্স : হাই ফাইবার কর্ণফ্লেক্স ওজন কমাতে সাহায্য করে। তবে কর্ণফ্লেক্স অবশ্যই চিনি ছাড়া হতে হবে। যদি চিনি ছাড়া খেতে না পারেন তবে মধু ব্যবহার করতে পারেন।

১ কাপ মাখন ছাড়া দুধ : মাখন ছাড়া দুধে ক্যালোরির পরিমাণ অনেক কম থাকে। তাই এই ডায়েট চার্ট-এ ১ কাপ মাখন ছাড়া দুধ অবশ্যই রাখবেন।

ফল : এই ডায়েট চার্টে ফলের গুরুত্ব অনেক বেশি। রাতে বেশি করে পাকা পেঁপে খাবেন। এটি ফ্যাট কমাতে অনেক সহায়তা করে।

চাইলে কর্ণফ্লেক্স ও দুধ একসঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন। তবে দুধটা ঠাণ্ডা না খেয়ে গরম খাবেন। সঙ্গে খেতে পারেন এক মুঠো কাঠবাদাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *