তিনবার করোনায় আক্রান্ত হয়েও সুস্থ মুম্বাইয়ের তরুণী ডাক্তার

গত ১৩ মাসের মধ্যে তিনবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। এর মাঝেই নিয়েছেন করোনা টিকার দুই ডোজ। এরপরও রক্ষা পাননি মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালের চিকিৎসক শ্রুষ্টি হালারি।

তিনবারের মধ্যে দুবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন টিকা নেওয়ার পর।  মুম্বাইয়ের মুলুন্দ এলাকায় বীর সাভাকর হাসপাতালের চিকিৎসক শ্রুষ্টি। দায়িত্বরত অবস্থায় গত বছরের ১৭ জুন প্রথমবার করোনায় আক্রান্ত হন ২৬ বছর বয়সী এই চিকিৎসক। তবে ওই সময় তাঁর শরীরে করোনার মৃদু উপসর্গ ছিল। চিকিৎসা নিয়ে অল্প দিনের মধ্যেই সুস্থ হন তিনি।

সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে চলতি বছরের ৮ মার্চ করোনার টিকার প্রথম ডোজ নেন শ্রুষ্টি। দ্বিতীয় ডোজ নেন ২৯ এপ্রিল। করোনার টিকা কোভিশিল্ডের দুটো ডোজ নিয়েছিলেন। শ্রুষ্টির সঙ্গে তাঁর পরিবারের সদস্যরাও কোভিশিল্ডের দুটো ডোজ নিয়েছিলেন। টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ঠিক এক মাস পর গত ২৯ মে শ্রুষ্টির দ্বিতীয় দফায় করোনা শনাক্ত হয়। এবারও উপসর্গ ছিল মৃদু। বাড়িতে থেকেই সুস্থ হন। হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি।

তবে তৃতীয়বার কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ায় শ্রুষ্টিকে ভুগতে হয়েছে বেশ। ১১ জুলাই তাঁর তৃতীয়বারের মতো করোনা শনাক্ত হয়। কোভিশিল্ডের দুই ডোজ নেওয়ার পরও আক্রান্ত হন তাঁর বাবা, মা, ভাইসহ পরিবারের চার সদস্যের সবাই। চারজনকেই হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়।

এই ঘটনা করোনার টিকার কার্যকারিতা নিয়ে যাদের সন্দেহ রয়েছে তাদের খানিকটা উস্কে দেবে সন্দেহ নেই। অনেকেই মনে করেন, করোনা থেকে পুরোপুরি সুরক্ষা দিতে পারে না টিকা। বিশেষজ্ঞদের মতেও টিকায় পুরোপুরি সুরক্ষা মিলবে না। এমনকি টিকার দুই ডোজ নেওয়ার পরও করোনা হতে পারে। তবে টিকা নেওয়ার পর করোনা হলে গুরুতর অসুস্থ হওয়ার হার কমে আসে। কমে আসে করোনায় মৃত্যুর আশঙ্কা। শ্রুষ্টির ক্ষেত্রেও তেমনটাই হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven + 19 =