দারিদ্র্য

 

জয়িতা চট্টোপাধ্যায়

##

তুমি জানতে চাওনি কখনো ঠিক কি ভাবে আমার দিন কাটে?

বুকের ভেতর দমক দিয়ে ওঠে ঝড় প্রতিটা দিন প্রতিটা রাতে ।

আমি শুনেছি সরোবরের কথা ঘাসের বুকে চিত হয়ে শুয়ে ।

চৈত্রের দুপুরে নাভিছেড়া খিদে নিয়ে ছুড়ে দিয়েছি সান্ত্বনা স্বপ্নকে ধুয়ে ।

তোমাকে তো চিনি আজ বহুদিন,সময়ের সাগর থেকে যখন উঠে এল অসময়।

তোমাকে চিনে নিলাম আবার,তোমার তুমি র সাথে আমার নতুন পরিচয় ।

আমি আজ ও বেঁচে থাকি আলোর মতন বিদ্যুতে বিদ্যুতে ।

পেটে খিদে নিয়ে ছুটেছি খাবারের টানে তবু দিই নি আমার স্নেহ হাত তোমাকে ছুঁতে ।

শব দেহের মত দাহ হয়ে যায় পাপ পুণ্যের জ্ঞান,

যখন তোমার বুকের ভিতর শতেক যাত্রী চাইবে পরিত্রাণ ।

খ্যাপার মতন ছড়িয়ে পড়ে বাচার খিদে অগণিত কোষের ভেতরে।

স্হিরতা রেখেছি অলিন্দের ভাজে শব্দ আর অলঙ্কার

আমার কবিতার থেকে ধিরে ধিরে গেছে সরে ।

জানি উঁচু হয়েছে পাহাড়, তবু নোয়াব না মাথা তোমার দু পায়ে ।

তুমি যাকে পাওনা দেখতে সে আমার দর্শন,

লেগে থাক এই দারিদ্র্যতা অভিশাপ হয়ে গায় ।

স্পর্শহীন দুঃখ তুমি ও পাবে আকাশ ও পৃথিবী এক করে দিলে ।

তোমার আদর্শ সুপ্ত থাকে অন্যের বুকে,মৃত্যু হয়েছে কবেই তোমার,

তুমি ভাবো আসলে জীবিত ছিলে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *