পাকিস্তানে রূপান্তরকামী ও বৃহন্নলা সম্প্রদায় : সামাজিক বৈষম্য, শিক্ষা ও কর্মসংস্থানগত সমস্যার পর্যালোচনা ও উন্নতিসাধনের প্রয়াস

ধিরাজ সাউ ##

সাম্প্রতিক সাংবিধানিক সংশোধনী (অনুচ্ছেদ ২৫A) পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য শিক্ষাকে একটি মৌলিক অধিকার করে তোলে। অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘ রাষ্ট্র আইন দ্বারা নির্ধারিত পদ্ধতিতে ৫ থেকে ১৬ বছর বয়সী সকল শিশুকে বিনামূল্যে এবং বাধ্যতামূলক শিক্ষা প্রদান করা হবে ‘।পাকিস্তান সমাজে, প্রতিবন্ধী,অনাথ এবং সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর জন্য স্কুল আছে কিন্তু হিজড়াদের জন্য কোনো প্রতিষ্ঠান ছিল না। হিজড়া মানে তৃতীয় লিঙ্গ, যারা জন্ম থেকেই কিছু শারীরিক ত্রুটি নিয়ে জন্ম হয়। এদেরকেই দেখবেন রাস্তা-ঘাটে হাতে তালি দিতে আবার , কোনো বাচ্চা যদি পুরুষ লিঙ্গের হয়ে জন্মগ্রহণ করে কিন্তু তার আচরণ, স্বভাব, দৈহিক গঠন, কন্ঠস্বর মেয়েদের মত হয়ে থাকে তবে সে রূপান্তরিত লিঙ্গ। আবার, কোনো বাচ্চা যদি মেয়ে লিঙ্গের হয়ে জন্ম নেয় কিন্তু বাকিসব কিছুই যদি পুরুষদের মত হয় তবেও সে রূপান্তরিত লিঙ্গ।।তাই তাদের ক্ষমতায়ন ও শিক্ষিত করার জন্য ২০১৮ সালে একটি উপযুক্ত শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যাতে তারা জীবিকা নির্বাহ করতে পারে । ২৩ এপ্রিল ২০১৮ সালে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করা হয় যে  পাঞ্জাব প্রদেশের লাহোর শহরে অবস্থিত, জেন্ডার গার্ডিয়ান স্কুল – রূপান্তরিত লিঙ্গদের জন্য পাকিস্তানের প্রথম স্কুল – এর উদ্বোধনী দিনেই ২৫ টি নথিভুক্তিকরণ হয় , লাহোরের এই বেসরকারী স্কুলটি ১৫ জন ফ্যাকাল্টি সদস্যের সাথে প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ১২ বছরের একাডেমিক শিক্ষা প্রদান করে। এই ১৫ জন শিক্ষক কর্মচারীর মধ্যে তিনজন রূপান্তরিত লিঙ্গ সম্প্রদায়ের রয়েছেন। এবং পরবর্তীকালে ৭ জুলাই ২০২১ সালে পাকিস্তানে প্রথমবারের মতো হিজড়াদের জন্য একটি সরকারি-সমর্থিত পাবলিক স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয় । পাঞ্জাব সরকার প্রদেশে স্কুল প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছিল। এবং মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী, শিক্ষক এবং ছাত্ররা মূলধারার একটি অভূতপূর্ব উদ্যোগ হিসাবে স্বাগত জানাই এরূপ উদ্যোগে কে। রূপান্তরিত লিঙ্গ শিক্ষার্থীদের একটি নিরাপদ শিক্ষার পরিবেশ প্রদান করা যেখানে তারা কেবল পড়াশুনাই করবে না কিন্তু ক্যারিয়ার কাউন্সেলিংও পাবে এটি ছিল এই স্কুল প্রতিষ্ঠার প্রধান উদ্দেশ্য ।

বিশেষ কয়েকটি রিপোর্ট অনুযায়ী পাকিস্তানে, অর্থ উপার্জনের জন্য ট্রান্স লোকদের প্রায়ই ভিক্ষা, নাচ প্রভৃতি করতে হয় এমনকি পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয় তাঁদের, এছাড়া পারিবারিক প্রত্যাখ্যানের পাশাপাশি সামাজিক কুসংস্কারও তাদের প্রতি প্রবল। তারা যেমন সহজে সমাজে চলাফেরা করতে পারে না, তেমনি বিনোদন পেতে ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান করতেও পারে না। ঈদের দিন তাদের বাড়িতে থাকতে হয় যখন তারা উদযাপনের জন্য বের হয়, তাদের প্রতি মানুষের মনোভাব খুবই অপমানজনক এবং অদ্ভুত। তারা বিনোদনের জন্য পার্কে সহজে চলাচল করতে পারে না। তারা অবাধে একজন ডাক্তারের কাছে যেতে পারে না কারণ তারা তাদের অস্পষ্ট পরিচয়ের কারণে তাদের পরীক্ষা করতে দ্বিধা করে। তারা কর্মসংস্থানের জন্য যেতে পারে না কারণ লোকেরা কখনই তাদের উপর আস্থা রাখে না। এত সংকীর্ণ পরিবেশে শিক্ষা লাভের সুযোগ পাওয়া যায় না। । যাইহোক, এরূপ পরিস্থিতির রূপরেখা ২০১৯ সালে পরিবর্তন হতে শুরু করে, যখন দেশের সুপ্রিম কোর্ট রূপান্তরিত লিঙ্গদের তৃতীয় লিঙ্গ হিসাবে মনোনীত করেছিল। এর আগে, ট্রান্স ব্যক্তিদের প্রায়শই চিকিত্সা থেকে বঞ্চিত করা হত কারণ ডাক্তাররা সিদ্ধান্ত নিতে পারত না যে তাদের পুরুষ নাকি মহিলা ওয়ার্ডে চিকিত্সা করা হবে। তাই স্কুল কর্তৃপক্ষের চূড়ান্ত লক্ষ্য পাকিস্তানিদের মধ্যে বিভাজনের অবসান ঘটানো এবং দেশে বহুত্ববাদ ও সহনশীলতা ছড়িয়ে দেওয়া।” স্কুলের লক্ষ্য হল রূপান্তরিত লিঙ্গদের সুযোগ পেতে এবং সমাজে একীভূত হতে সাহায্য করা, পাশাপাশি তাদের সম্প্রদায় কে অন্যদের কাছে রোল মডেল করে তোলা । কেন না  “সম্প্রদায় যদি শিক্ষিত হয় এবং ক্ষমতায়িত হলে অবশ্যই, তারা অনৈতিক পেশা এড়াবে।রক্ষণশীল পাকিস্তানে,তাঁদের প্রায়ই সমাজের দ্বারা হয়রানির শিকার হতে হয় ও তাঁরা দূরে সরে যায়।২০১৬ সালের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী আলিশা নামের, একজন ২৩ বছর বয়সী রূপান্তরিত লিঙ্গ কর্মী, তাকে সাতবার গুলি করা হয়েছিল এবং তাকে পেশোয়ারের লেডি রিডিং হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, যেখানে তার চিকিৎসা বিলম্বিত হওয়ার কারণে মৃত্যু হয়েছিল, কারণ কর্মীরা তাকে পুরুষের সাথে রাখবেন নাকি মহিলা ওয়ার্ডে তা সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তার বন্ধুরা এরূপ ঘটনার জন্য বারবার বৈষম্যের দিক টা তুলে ধরে ছিল।

যদিও রূপান্তরিত লিঙ্গদের মৌলিক অধিকার সুরক্ষিত করার জন্য সাংবিধানিক ও আইনি পদক্ষেপগুলি তৈরি করা হয়েছে, তবুও  বলা হয়  রূপান্তরিত লিঙ্গরা প্রায়ই দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে বৈষম্যের সম্মুখীন হয়। সরকারের দৃষ্টিভঙ্গিতে হতাশ, লাহোর হাইকোর্টের (এল.এইচ.সি) বিচারক সম্প্রতি পাঞ্জাবের মুখ্য সচিবকে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে বিভাগগুলিকে পুরুষ, মহিলা এবং ট্রান্সজেন্ডারের মধ্যে বৈষম্য করার অনুমতি না দিয়ে রূপান্তরিত লিঙ্গ ব্যক্তি (অধিকারের সুরক্ষা) আইন 2018 কঠোরভাবে প্রয়োগ করতে। ব্যক্তি “সমাজের এই অংশটিকে এখনও কম সমান বা অস্তিত্বহীন হিসাবে বিবেচনা করে থাকে,” আদালত অনুযায়ী বাস্তবায়ন হয়েছে কিন্তু তা খুব ধীর গতিতে হয়েছে। সম্প্রদায়টিকে শুধুমাত্র ২০১১ সালে ফেডারেল নির্বাচনে ভোট দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল৷ গত বছর, তারা জাতীয় আদমশুমারিতে একটি পৃথক বিভাগ হিসাবে স্বীকৃত হয়েছিল৷ যদিও সাংবিধানিকভাবে তাদের অর্থনৈতিক অধিকারও দেওয়া হয়েছে, যেমন উত্তরাধিকার অধিকার, এটি প্রায়শই অনুশীলনে অনুভূত হয় না বাস্তবে। এমনকি ধর্মীয় দলগুলিও হিজড়াদের শেষ আচার-অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকে কারণ এটি আংশিক ইসলামের বিরুদ্ধে বলে মনে করা হয় ,অর্থাৎ পাকিস্তানের অন্তর্নিহিত সমস্যা হল একটি সঠিক ব্যবস্থা নেই। যেখানে তারা তাদের ঘোষিত অধিকার পেতে যেতে পারে। একটিও আন্দোলন বা সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তি নয় যা সত্যিকার অর্থে সমগ্র সম্প্রদায়ের পরিস্থিতিকে দেশভিত্তিক চিত্রিত করবে। বলা যায় পাকিস্তানের অধিকাংশ রূপান্তরিত লিঙ্গরা তাদের পরিবার থেকে স্বীকৃতি পাইনি এবং নিজেই নিজেদের ভরণপোষণ করতে বাধ্য হয়। রূপান্তরিত লিঙ্গ মানুষ একই সমস্যার সম্মুখীন হয়, যে তাদের বাবা-মা তাদের অস্বীকার করেছেন। তারা তাদের গুরুদের (এক কথাই পরামর্শদাতাদের) সাথে থাকেন, তাই তাঁরা কোনো অভিভাবকের সাথে যোগাযোগ রাখেনা, তাঁরা তাদের গুরুর মাধ্যমে সরাসরি তাদের সাথে যোগাযোগ করে,” এই গুরু-চেলা সম্পর্ক, একটি গুরু-শিষ্য সম্পর্কের মতো, এমন একটি পরিস্থিতি যেখানে রূপান্তরিত লিঙ্গ ব্যক্তিদের আশ্রয় দেওয়া হয় এবং তাদের পরামর্শদাতাদের দ্বারা সমর্থন করা হয় এবং ,এই পরামর্শদাতারাই তাদের যত্ন নেয় এবং সংকটের সময়ে তাদের পাশে দাঁড়ায়।এখানে রাষ্ট্রের দিক থেকে তাদের উন্নতির জন্য যা হচ্ছে তাতে তারা পুরোপুরি সন্তুষ্ট নয়। মনে হয় কাঠামোগত ত্রুটি রয়েছে যা তাদের রাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের ফল ভোগ করা থেকে দূরে রাখে এবং তারা প্রান্তিক হয়ে জীবন কাটাচ্ছে। যেমনটি বলা হয়ে থাকে যে প্রান্তিক মানুষ সমাজের মূলধারার কাঠামোর সাথে খুব কমই একত্রিত হয় এবং খুব কমই কার্যকরভাবে নীতি প্রণয়নের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়াগুলিতে অংশগ্রহণ করার অবস্থানে থাকে ।

তবে ,আশা করা যায় যে এই উদ্যোগের কারণে সামাজিক, পারিবারিক এবং অর্থনৈতিক প্রতিবন্ধকতা এবং রূপান্তরিত লিঙ্গ এবং অন্যান্য পাকিস্তানিদের মধ্যে ব্যবধান সংকুচিত হবে,পাকিস্তানের ধর্মীয় সংখ্যালঘু গোষ্ঠী এবং প্রতিবন্ধীদের বিপরীতে, রূপান্তরিত লিঙ্গ লোকেরা চাকরির কোটা থেকে উপকৃত হয় না এবং খুব কমই পায় । শুধুমাত্র তাঁদের বাবা-মা তাদের কে একজন মানুষ হিসাবে গ্রহণ করেন কিন্তু তাঁদের আত্মীয়ের মতো লোকেরা, কখনও কখনও এমনকি নিজের ভাইও উপহাস করে। এখানে আশা করা যায় যে এই সম্প্রদায়কে শিক্ষিত করার এই পদক্ষেপ তাঁদের সমাজে একীভূত হতে সাহায্য করবে এবং বিশেষ করে পাকিস্তানের রক্ষণশীল এলাকায় ট্রান্স লোকদের অনেকেই বহিষ্কৃত বলে মনে করেন। তারা প্রায়ই যৌন নির্যাতন, লাঞ্ছিত এমনকি খুনও হয়। বৈষম্য এড়াতে তারা নিয়মিত স্কুলে ভর্তি হতে দ্বিধাবোধ করে। তবে প্রান্তিক হিজড়া সম্প্রদায়ের জন্য প্রথম উদ্যোগ, তাই বাধা থাকবে। তবে হিজড়াদের জন্য স্কুল প্রতিষ্ঠার এই পদক্ষেপ পাকিস্তানে পরিবর্তন আনবে।তবে একথা অস্বীকার করা যায় না যে শিক্ষা তাদের প্রতি সামাজিক কুসংস্কার কমাতে পারে না কারণ সমাজের বেশিরভাগ জনসাধারন ইতিমধ্যেই শিক্ষিত , তবুও মানুষ তাদের অস্বাভাবিক মানুষ মনে করে। উপরোক্ত সকলের জন্য মূল বিষয় হল জনগণের সংবেদনশীলতা এবং তাদের প্রতি সামাজিক অনমনীয় মনোভাবের পরিবর্তনের প্রয়োজন।আইন প্রণয়নকারী সংস্থাগুলিকে অংশগ্রহণমূলক পদ্ধতি এবং জনগণের মাধ্যমে তৃতীয় লিঙ্গ সম্প্রদায়ের চাহিদা পূরণ করা উচিত। তৃতীয় লিঙ্গের লোকদের উপস্থিতির প্রতি দায়িত্বশীল উদ্বেগ দেখাতে হবে, কোনো কুসংস্কার ও নেতিবাচকতা না রেখে তাদের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।   কোনো ধরনের বৈষম্য ছাড়াই সব মানুষের জন্য প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিস্তৃত স্থানের প্রয়োজন। এটি সমাজকে প্রগতির সাথে যুক্ত করবে এবং সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 1 =