যে পাহাড় রং বদলায়

আস্ত একটা পাহাড়। কিন্তু মাঝে মাঝেই সে নিজের রঙ বদলায়। রং রহস্যের অদ্ভুত এক পাহাড় আয়ার্স রক। এর ভৌগলিক অবস্হান অস্ট্রেলিয়ার উত্তর অংশে উলুরু অঞ্চলে। বৈচিত্র বৈশিষ্ঠের জন্য অনেকেই একে ম্যাজিক পাহাড়ও বলে থাকেন। অনেকটা ডিম্বাকৃতির এ পাহাড়টির উচ্চতা ৩৪৮ মিটার, দৈর্ঘ্য ৭ কিলোমিটার এবং প্রস্হ ২.৪ কিলোমিটার।পাহাড়টির স্বাভাবিক রং লাল তবে সুর্যোদয় ও সুর্যাস্তের সময় ঘটে অদ্ভুত যত ঘটনা। প্রভাতে আলোর বিচ্ছুরণ পাহাড়ের উপর পড়লেই মনে হয় যেন আগুন ধরেছে এর গায়ে। বেগুনী ও গাঢ় লাল রংয়ের শিখা বের হয়ে আসে পাহাড় থেকে। কেবল সূর্যোদয় কিংবা সুর্যাস্ত নয় সারাদিন জুড়ে চলে রঙ বদলের খেলা। হামেশাই হলুদ থেকে কমলা, পরে লাল ও মাঝে মাঝে বেগুনী কখনও বা মেঘ কালো। অসম্ভব রহস্যের আনাগোনা পাহাড়টি জুড়ে। রং রহস্যের আয়ার্স রক এর মাধুর্য মুগ্ধ করে যে কোনও মানুষকেই। অদ্ভুত এই পাহাড়টি সম্পূর্নই একটি মাত্র প্রস্তর খন্ড।

পাহাড়টির রঙ বদলানোর রহস্য নিয়ে মতবিরোধ আছে। অনেকে মনে করেন সব রহস্য লুকিয়ে আছে পাহাড়টির ভৌগলিক অবস্থানের উপর। ধারনা করা হয় পাহাড়ের নিচে কোন ম্যাগনেটিক ফিল্ড আছে। যার কারনে বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলে সূর্যের আলো পাহাড়টিতে পড়বার সঙ্গে সঙ্গে অবিরাম পাহাড়ের রঙ বদল হচ্ছে। অনেক কল্প কাহিনীও প্রচলিত আছে এই পাহাড় নিয়ে। স্থানীয়রা ভাবেন এই পাহাড়ে এক সময় জাদুকররা বাস করতেন। তারাই যাদু মন্ত্র দিয়ে এমনটি করে গেছে বলে তাদের ধারনা। কিন্তু আসল রহস্য কারো পক্ষেই বের করা সম্ভব হয়নি।

প্রতিনিয়ত অগনিত পর্যটক আসেন আয়ার্স রক নামে পাহাড়টি দেখতে। তাই পর্যটকদের পরিদর্শনের সুবিধার্থে অস্ট্রেলিয়ান সরকার পাহাড়টির আশেপাশে ৪৮৭ বর্গমাইল এলাকা জুড়ে মাউন্ট ওগলা ন্যাশনাল পার্ক গড়ে তুলেছে। পাহাড়টিতে ঘুরতে আসা পর্যটকরা মনে প্রানে উপভোগ করেন প্রকৃতির এই অপার সৌন্দর্যকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *