আগুন


জয়িতা চট্টোপাধ্যায় ##

শরীরের ভেতর জ্বলে গনগনে আগুন

চোখে নামে অগ্নিবৃষ্টি

পুড়ে পুড়ে খাঁকে হয়ে যাওয়া নীল ঠোঁট

, হলুদ চামড়া, কপালে আঁকা ফাটল

আঙুলের যেন কুড়ুলে কাটা ডাল

মেঘ চুল যেন আস্তাকুঁড়

স্রোতে আত্মসমর্পিত নৌকার মতন দশা

সমস্ত গন্তব্য গমনাগমন হরিয়েছে

শরীর যেন জ্বরে আতপ্ত  পোড়া

যমুনার জল কে যেন খেয়ে নিয়েছে শুষে

অগুরু গন্ধে নিকনো দক্ষিণের দাওয়া

পুড়ে পুড়ে খাঁক হওয়া নিখাদ বিশ্রাম

এ শরীর জানে নৌকাডুবি, জানে খরার ভাষা

আমার রক্ত ওষ্ঠ দিয়ে রাঙিয়ে দিতে চাই তোমার দিগন্ত, বুকের ভেতরের গুহায় চলে আগুণের স্তব

আকাশের বুকে হোক তোমার আত্ম উন্মোচন

দৃষ্টির সুরঙ্গ বেয়ে এভাবেই অভিযান হোক চেতনার

সাজানো সংসার রাখি খুঁটিতে ঝুলিয়ে

এ জীবনের কতটুকু তুমি ছাড়খাড় করো

পুড়ে যায় শুধু নশ্বর কঙ্কাল

সর্বস্বের বিনিময়ে আমি ছুটে যাই তোমার কাছে

মেঘে ঝড়ে শক্তি পাই তোমাকে লিখে রাখবার

সমস্ত কাঁটা ছেঁড়া, ছোট ছোট মরা

নিমেষে সেলাই করি জরির সুতোয়

জেগে ওঠে জন্মান্তর, যেন চতুর্দিকে শঙ্খের  উৎসব

তোমারই আগুন ছুঁয়ে রক্তরেখা আমার পথে পথে

শুধু আমাকেই মানায় এই অভিসার এমন ঝড়ের রাতে।। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 1 =