উপকারী শিম

শীতকালীন অন্যতম একটি সবজি হচ্ছে শিম। যা শীতকাল ছাড়া বছরের অন্য সময় কমই পাওয়া যায়। শিম খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি পুষ্টিতেও ভরপুর। শীতের সবজি শিম শরীরের নানা উপকার করে। দূরে রাখে অনেক রোগ থেকেও। 

শিমে রয়েছে নানা ধরনের খনিজ পদার্থ। তার সঙ্গেই রয়েছে ফাইবার, আয়রন এবং ক্যালশিয়াম। ফলে শিম নিয়মিত খাওয়া গেলে নানা দিক থেকে উপকার হয় শরীরের। প্রতি ১০০ গ্রাম শিমে ৮৬.১ গ্রাম জলীয় অংশ আছে। এতে খনিজ উপাদান রয়েছে ০.৯ গ্রাম, আঁশ ১.৮ গ্রাম ও ক্যালোরি বা খাদ্যশক্তি রয়েছে ৪৮ কিলো ক্যালোরি। এছাড়াও শিমে ৩.৮ গ্রাম প্রোটিন, ৬.৭ গ্রাম শর্করা, ২১০ মি.গ্রাম ক্যালসিয়াম ও ১.৭ মি.গ্রাম লৌহ পাওয়া যায়।

এই সকল উপাদান ছাড়াও শিম জিঙ্ক, ভিটামিন সি ও নানা রকম খনিজ উপাদানে সমৃদ্ধ।

শিমের কিছু উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক- 

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

রোগের প্রতিকার এবং প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে

শর্করা ও চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ডায়াবেটিস বশে রাখার ক্ষমতা আছে।

কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণ

অনেকটা ফাইবার থাকায় কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণে থাকে।

চুল পড়া কমায়

প্রচুর পরিমাণ খনিজ পদার্থ থাকায় চুল পড়ার সমস্যা কমাতে সাহায্য করে শিম।

অস্থিসন্ধির জন্য

হাড়ের সংযোগস্থলের সুরক্ষা দেয় এবং অস্ট্রিও আথ্রাইটিস রোগ হওয়ার শঙ্কা কমায়।

ত্বকের আর্দ্রতা দূর করে

অনেকটা জলও থাকে এই সবজিতে। ফলে ত্বকের আর্দ্রতা দূর করতেও সাহায্য করে শিম।

হৃদরোগীদের জন্য

যারা নিয়মিত শিম খান, তাদের হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এতে থাকা ফাইটো কেমিক্যালস হৃৎপিণ্ডকে সুরক্ষা দেয়।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে

এই সবজির পাচক আঁশ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এর স্যাপোনিনস রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রাখে।

ওজন কমাতে 

শিমের আঁশ দ্রুত ভরে ফেলে পাকস্থলী। এছাড়া রক্তে চিনি আসার পারিমাণও কমিয়ে রাখে। শরীরকে শক্তি দেয়। অন্যদিকে, ওজন বাড়তে বাধা দেয়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার অসাধারণ এক ক্ষমতা আছে শিমে। এতে ইসোফ্লাবোনেস, ফাইটোস্টেরলসের মতো ক্যানসার-প্রতিরোধী উপাদান থাকে।

শিমের রয়েছে কিছু অপকারিতাও

কারো কারো শিম খেলে মাইগ্রেনের তীব্রতা বাড়তে পারে। মাথা ব্যথা হতে পারে। এছাড়া শরীরে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে শিম খাওয়া বাদ দিতে হবে। যারা বিষণ্নতার জন্য মনো-অ্যামাইন অক্সিডেস ইনহিবিটর খান, তাদের জন্য শিম বাদ দেওয়াই ভালো। এই সবজির উপাদান এসব ওষুধের সংস্পর্শে এসে রক্তচাপ বাড়িয়ে দিতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 4 =