সম্পাদকীয়, অক্টোবর ২০২২

আমাদের এলাকায় যখন প্রথম টোটো এল তখন সেটা দেখে বেশ ভাল লেগেছিল। শব্দ নেই, বায়ু দূষণ নেই, খুব একটা উচু নয়, তাই উঠতেও তেমন কষ্ট নেই। সব মিলিয়ে ছিমছাম একটা যান। চেপে বসে বেশ একটা রথের মত ফিল হচ্ছিল। মনে মনে বেশ পছন্দই হয়েছিল এই যানটি। কিন্তু বছর তিনেক পরে এই টোটোই এখন আমাদের আতঙ্ক। কারন তার সংখ্যা বৃদ্ধি। সংক্রমণ এর সঙ্গে যদি সংখ্যাবৃদ্ধির অঙ্ককে জুড়ে দেওয়া যায় তাহলে দেখা যাবে টোটোর সংখ্যা বৃদ্ধি করোনার চেয়ে কোনও অংশে কম নয়। কোনও জিনিস অতিরিক্ত বেশি হলে যা হয়, আমাদের এখন টোটোকে নিয়ে সেই দশাই হয়েছে, পথে নামলেই ঘাড়ের পড়ে দশখানা করে টোটো। শুধু আমাদের এলাকাই নয় এই সমস্যা প্রায় গোটা রাজ্যে তথা দেশেও। তাই মাঝে মাঝে মনে হয় কোনও কিছুর একটা সীমা থাকা অবশ্যই দরকার। দরকার প্রত্যেকটা বিষয়ে সঠিক অভিভাবকত্বেরও। না হলে বেশি মিষ্টির ফলে তিতো হয়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা।

একই কথা এখন বার বার ভাবাচ্ছে ইউটিউব। ইউটিউব আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী এখন। সে কোথাও বেড়াতে যাওয়াই হোক, বা নতুন রান্না শেখা, পড়াশোনাই হোক বা খেলাধুলা, সিনেমা নাটক গানই হোক বা প্রয়োজনীয় আলোচনা, সংবাদ সব সম্ভারই সাজানো তার দরবারে। আমাদের প্রয়োজনে এর গুরুত্বও অপরিসীম। দরকারি যেকোনও বিষয় চট করে যেনে নিতে, বলা ভাল দেখে নিতে গেলে ইউটিউব আমাদের বড় সহায়। এর ভূমিকা অস্বীকার করা অসম্ভব। কিন্তু গোল বেধেছে এখানেই, বিশ্বব্যাপী একটা ময়দান, সেখানে হাজির নানান মাপের, নানান মানের, নানান ধরনের খেলোয়াড়। ভাল মন্দ মাঝারি খারাপ সকলেই উপস্থিত এক ছাতার তলায়। সেখান থেকে আপনাকে বেছে নিতে হবে সেরা খেলা এবং তার খেলোয়াড়। কাজটা সাগরে মুক্তো খোঁজার মত। এই সুযোগটাই নিচ্ছে একাংশ। ক্রমশ ভরে যাচ্ছে অসাধু, অশালীন, অসত্য, অদ্ভুত, অকথ্য তথ্য ভাণ্ডারে। সাধারণ মানুষ নিজের অজান্তেই তা পাচ্ছেন হাতের মুঠোয়। ছড়িয়ে পড়ছে দাবানলের মত, মানুষের পর মানুষ সেই সব ভুলে ভরা তথ্যকে ধ্রুব সত্য মনে করে আরও ভুলের পথে এগিয়ে যাচ্ছেন।

আগে যখন এমন সামাজিক মাধ্যমের বাড়াবাড়ি ছিল না, তখন যে মাধ্যমগুলি আমাদের সামনে ছিল সেগুলি কিন্তু একটা নির্দিষ্ট নিয়ম বা আইনের বেড়াজালের মধ্যে থেকেই তথ্যপ্রদান করত। ঠিক হোক ভুল হোক, একটা সীমা, একটা ভয়, একটা নজরদারীর সুবিধা তখন কাজ করত। আমি নিজে সাংবাদিক তাই সংবাদের কথাই বলা যাক। সংবাদ মাধ্যম বলতে টিভি, খবরের কাগজ এবং রেডিও, এই তিনটি মাধ্যমই মুখ্য ছিল। সংবাদ সংগ্রহের পর সেই সংবাদ কতটা যাবে, কিভাবে যাবে, আদৌ যাবে কিনা এসব দেখার জন্য একাধিক অভিজ্ঞজনেরা থাকতেন। এখনও থাকেন। সংস্থার নীতি অনুযায়ী কিছু কিছু ক্ষেত্রে এদিক ওদিক হয় ঠিকই, কিন্তু গোটাটাই মিথ্যা এমনটা সচরাচর হয় না। অশালীন, অভব্য, অনৈতিক, হিংসা বা অপরাধ প্রণোদিত কোনও খবরও প্রকাশ পায় না বললেই চলে। সাম্প্রদায়িক হিংসা, মূল্যবোধকে আঘাত করে এমন কোনও বিষয়ও এখানে অনেক ভেবেচিন্তেই প্রকাশ করা হয় বৃহত্তর স্বার্থে। এমন কিছু বিষয়ে কেউ ভুলবশত কিছু করলে তাকে বোঝাবার, বকার বা শাস্তি দেওয়ার নানাবিধ উপায় আছে। কিন্তু ইউটিউব চ্যানেলের অধিকারীর সেই দায় নেই। তাকে কাউকে জবাবদিহিও করতে হয় না। তাই তিনি যে কোনও বিষয়েই একটা ভিডিও বানিয়ে তা দিতেই পারেন, তা তিনি সেই বিষয়ে দক্ষ বা কুশলী না হলেও কারও কিছু বলার থাকে না।

আমার আপত্তি এখানেই। ইউটিউবে মুড়ি মিছরির এক দর। সেখানে বাছার সুবিধা হয়তো আছে, কিন্তু একই বিষয়ে এত বেশি ভিডিও থাকে, যে না জানলে ভালটা বেছে ওঠাই কঠিন অনেক সময়। বহু বিষয়ে না গিয়ে ফের খবরেই ফিরে আসি। অনেকেই বলবেন একটা বিষয় খুব ভাল হয়েছে, যে সংবাদ মাধ্যমগুলি অধিকাংশই পক্ষপাতদুষ্ট। সঠিক খবর দিতে চায় না। সেখানে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে নির্ভয়ে সঠিক খবর মিলছে। সরকার বা শাসকদলের বিপক্ষে খবর বা মত প্রকাশ দেখা যাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে অনেক গ্রাম গঞ্জের ছোটখাটো খবরও যেগুলি আমরা শহরে বসে জানতে পারতাম না। হ্যা, অবশ্যই এই সুবিধা আছে। কিন্তু পাশাপাশি এটাও ঠিক যে কিছু এমন ভাল তথ্য সমৃদ্ধ ইউটিউবার থাকলেও, অধিকাংশই এটাকে একটা গিমিক হিসেবে চালাতে চান। তারা সঠিক ভাবে খতিয়ে দেখে বা গবেষণা না করেই কোনও খবর নিয়ে আলোচনায় বসে পড়েন। তাদের অনেকেরই ভাষা চয়নের ক্ষেত্রে শিষ্টাচারের লেশ মাত্র থাকে না। তাদের অনেকেই শিরোনামে এক রকম লেখেন কিন্তু ভিতরের খবরে থাকে অন্য বিষয়। আবার কেউ শুধু মাত্র ভিউ বা লাইক পেতে ভুল খবরও উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে শিরোনামে দিয়ে দেন, যাতে মানুষ সেই খবর দেখতে প্রলোভিত হন। আমি উদাহরণ দেওয়ার জন্য দুই একটি ছবি দিয়েছি, একটি ছবিতে শুভেন্দু অধিকারীর বাড়িতে শৌচাগার থেকে টাকা উদ্ধারের কথা বলা হয়েছে। এই সময়ে এই ধরনের খবর অত্যন্ত স্পর্শকাতর, আমিও উৎসাহী হয়ে খবরটি দেখতে গিয়ে দেখলাম সেখানে এমন কোনও খবরই নেই, রয়েছে কুনাল ঘোষের একটি সাংবাদিক সম্মেলন, যেখানে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় প্রসঙ্গে তিনি কিছু কথা বলেছেন। আর একটি খবরের শিরোনামে দেওয়া রয়েছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেল ইডি। মমতা না কি কিছুই করতে পারলেন না। ভাবুন, অভিষেক ইডির ডাকে কয়েকবার হাজিরা দিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু তাকে বাড়ি থেকে ইডি তুলেছে বলে আমার অন্তত জানা নেই। তো এই ধরনের অসংখ্য চ্যানেলে ভরে গিয়েছে ইউটিউব। আর একটি খবরে কুনাল ঘোষ, ব্রাত্য বসুদের ক্ষ্যাপা ষাঁড়ের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। রাজনৈতিক নেতারা এমন অশালীন, অভব্য উপমা দিতেই পারেন, মাঝে মধ্যে দিয়েও থাকেন।  কিন্তু সাংবাদিকেরা এই উপমা দিতে পারে? আরও একটা ছিল, বাড়িতে ঢুকে খুনের চেষ্টা মমতাকে। হ্যা আমরা জানি একজন সন্দেহভাজন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির চত্বরে ঘোরাফেরা করবার সময় ধরা পড়ে। পুলিশ তদন্তও করছে। কিন্তু সে যে মমতাকে খুন করতে গিয়ে ধরা পড়েছিল সেটা নিশ্চিত ভাবে ওই ইউটিউবারই জানেন বোধহয়। আমার দু তিনটি উদাহরণ বিন্দুতে সিন্ধু মাত্র।

এখানেই শেষ নয়। সেদিন আমার ছেলের স্কুলে রিবন দিয়ে একটা হাতের কাজ করে আনতে বলা হয়েছিল। সেই বিষয়ে ভিডিও খুঁজতে গিয়ে হাতে যা এল, তা দেখে আমি প্রায় অজ্ঞান। রিবন দিয়ে ফুল তৈরির একটি ভিডিও, সেখানে ফুল তৈরি শেখানো হলেও তার ভয়েজ ওভারটা গোটাটাই চরম অশ্লীল। বটতলার হলুদ চটি বইয়ের কথা কারও জানা থাকলে তিনি বুঝবেন, তেমনই এক রতিসুখের গল্প গোটা ভিডিওতে পড়ে শোনাচ্ছেন একজন মহিলা। ভাবুন তো, আমার ছেলের হাতে ওই ভিডিও পড়লে, এবং ওই ভয়েজ ওভার সে শুনলে কি হত সেটা অবশ্য আমি জানি না। পরে দেখলাম এমন কনটেন্টে  ভর্তি ইউটিউব। 

ইউটিউব নিজে এসব যে খুব প্রশ্রয় দেয়, এমনটা কিন্তু নয়। তাদের নিজস্ব কিছু পলিসিও আছে, যেখানে কপিরাইট থাকে, আগেকার কোনও কনটেন্টের সঙ্গে সাদৃশ্য থাকলে তারা সতর্ক করে দেয়, নগ্ন বা অশ্লীল কিছু নজরে এলে তাও মুছে দেওয়া হয়। কিন্তু কথা হচ্ছে এগুলি মানুষের পক্ষে দেখা অসম্ভব। কোটি কোটি ভিডিও প্রতিদিন আপলোড হচ্ছে, এই বিষয় খতিয়ে দেখে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স। তারা উপর থেকেই দেখে নেয়, আগেকার কনটেন্টের সঙ্গে মিলিয়ে দেখে, দেখে ভিডিওতে কোনও অশ্লীলতা, হিংসা আছে কিনা। কিন্তু বাংলা চটি বইয়ের অডিও বোঝার ক্ষমতা বোধহয় ইউটিবের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার নেই। তাই তো নজরদারির ফোকর গলে সহজেই পার হয়ে যায় এমন ভুলের মিছিল।

শুনছি কেন্দ্রীয় সরকার এই সামাজিক মাধ্যমের কনটেন্টগুলির উপরে এবার নজরদারির কথা ভাবছে। এটা একটা ভাল উদ্যোগ, কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই ধরনের অবাঞ্ছিত বিষয়গুলি এক্ষেত্রে কমতে পারে। কিন্তু এর খারাপ দিকও আছে, এখানে কিছুটা হলেও যে স্বাধীন ভাবে মত প্রকাশের জায়গা থাকছে সেটা বন্ধ হয়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। এমনিতেই আমাদের দুই সরকারই পরমতসহিষ্ণুতায় বিশ্বাস করে না, তাদের বিপক্ষে কোনও কথা বলা বা সমালোচনা করা মানে তা সরাসরি দেশদ্রোহিতার সমান। তাই সরকার যদি দেখভালের দায়িত্ব নেয় তাহলে মত প্রকাশের সামান্য আশাটুকুও শেষ। তবে এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার কি কোনও পথই নেই। আছে একটা, আপনি আমি আমরা। তবে সেটা যথেষ্ট সংশয়ের। আমরাই তো কাঁচা বাদাম বিক্রিকে গান বলে ভাইরাল করি। আমরাই তো রাস্তায় দুর্ঘটনা, হত্যা দেখে না বাঁচাতে গিয়ে ভিডিও করে ইউটিউবে দিই। তাই আমরা নিজেরা ভাল হয়ে গিয়ে এমন ভুলের ফাঁদে পা না দিয়ে শুধু সঠিক পথেই চলব এটা কল্পনাতেই ভাল লাগে। কার্যক্ষেত্রে…??? 

ভাল থাকবেন। সকলের জন্য রইল শুভ দীপাবলির শুভেচ্ছা ও ভালবাসা।

পলাশ মুখোপাধ্যায়

প্রধান সম্পাদক, অবেক্ষণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × two =