গর্ভস্থ

সুপ্রিয় দেওঘরিয়া

এক অবিরাম স্রোত টান দেয় গর্ভের দিকে
আত্মস্থ করার নিমিত্তে – চরাচর চতুর্দিকে
তখন অসহায় আত্মসমর্পণ। ভূগর্ভস্থ রেণু
পরাগ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। সম্মোহিত বেনু
প্রান্তরে, প্রান্তরে সুকোমল হরিনীর মত মায়াময়
অসহায় চোখে অভিসারী সুর-ছন্দ-লয়
সন্ধানে ঘুরপাক খায়। টানের প্রকৃতি আত্মসমর্পণ।
অন্ধকারে লীন আত্মস্থ নিয়ন্ত্রণ – মরণপণ
ঘুরতে থাকে নির্দিষ্ট পথে –
যে স্রোত ধরে রাখে,
সর্বদাই স্বার্থপর। সর্বদাই কেন্দ্রিক। পাকে পাকে
তার বন্ধন ডোর, সর্পিল ফেনা , পিছুটান; চক্রাকার
আবর্তনের বৃত্তগুলি যার সাজানো; অথচ হাহাকার
ক্ষুধা-বাসনা তাড়িত যার প্রতিটি নিয়তি সর্বগ্রাসী,
সে বিদাইয়ে বাসনা, প্রাপ্তিতে অপ্রাপ্তি, অজান্তে রাশি রাশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *